রাঙ্গামাটির সাপছড়ি এলাকায় চট্টগ্রাম কর্ণফুলী থেকে আসা পিকনিক বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে উল্টে গিয়ে ১জন নিহত ও ২৭জন আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া বাসের চালক পলাতক রয়েছে।

বিজ্ঞাপন

শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকাল সাড়ে ৯টার দিকে রাঙ্গামাটি সদরের সাপছড়ির শালবাগান বেইলি ব্রিজ এলাকায় মর্মান্তিক এ সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে।

তাৎক্ষণিকভাবে আহত ২৭ জনের মধ্যে ১২ জনের নাম জানা গেছে। আহতরা হলেন- মো. শামীম (২২), মো. সোহাগ (২১), সজল (৩৫), রাহিমা (১৮), সুজন (২১), মো. আমিরুল (২২) মো. কাউসার (২০), মো. রাজু আহম্মদ (৩০), মো. মিজান (২৩), মো. আজরুল ইসলাম (২৩), মো. শাকিল (১৮) ও মো. আনোয়ার হোসেন (২৬)।

দুর্ঘটনা কবলিত চয়েস বাস

জানা গেছে, সকালে চট্টগ্রাম থেকে একটি পিকনিকের বাস রাঙ্গামাটি যাচ্ছিল। পথে সাপছড়ির শালবন এলাকায় চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে উল্টে যায় বাসটি। খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে গিয়ে হতাহতদের উদ্ধার করে রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতাল পাঠায় জেলা প্রশাসন, পুলিশ, সেনাবাহিনী ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন। পরে দুর্ঘটনা কবলিত বাসটি উদ্ধার করা হয়।

সদর জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডাক্তার শওকত আকবর বলেন, এ পর্যন্ত ২৭ জন হাসপাতালে ভর্তি আছেন। এদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ বলেন, নিহতের লাশ বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার জন্য আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে। আহতদের চিকিৎসা নিশ্চিত করতে সর্বাত্মক ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। এছাড়াও ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী।

কোতোয়ালি থানার ওসি (তদন্ত) মো. নুর বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ দুর্ঘটনায় কবলিতদের উদ্ধার করে সদর জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বাস দুর্ঘটনায় প্রায় ২৭ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে তিনজনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্টগ্রাম প্রেরণ করা হয়েছে। বাসের চালক পালিয়ে গেছে। বাসটি উদ্ধার করে কোতোয়ালি থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। নিহত বাসের হেলপারের লাশ ময়না তদন্তের পর ওয়ারিশদের বুঝিয়ে দেওয়া হবে।