সাদা পোশাক গায়ে হতাশার বৃত্তে আটকে যাওয়া বাংলাদেশের সামনে ঘুরে দাঁড়ানোর চ্যালেঞ্জ। যেখানে প্রতিপক্ষ হিসেবে তুলনামূলক দুর্বল দল জিম্বাবুয়েকে পেয়েছে মুমিনুল হকরা। সিরিজের একমাত্র টেস্টের শুরুর দিনে সেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন ক্রেইগ আরভিন। নাঈম হাসানের শিকার ৪ উইকেট।

বিজ্ঞাপন

পাঁচদিনের ক্রিকেটে টানা ৬ ম্যাচ জয় বঞ্চিত বাংলাদেশ দল। একটা মাত্র জয়ের খোঁজে মিরপুরের শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে সফরকারী জিম্ববুয়ের মুখোমুখি হয়েছে লাল-সবুজের প্রতিনিধিরা। শনিবার শুরু হওয়া ম্যাচে টস ভাগ্য কথা বলে জিম্বাবুয়ের হয়ে। পিচের ধরণ পড়তে পেরে আগে ব্যাট করতে দু’বার ভাবেননি দলটির অধিনায়ক ক্রেইগ আরভিন।

তবে জিম্বাবুয়ের ইনিংসের শুরুটা সুখকর হতে দেননি বাংলাদেশি পেসার আবু জায়েদ রাহী। দলীয় ৭ রানে ফেরান ওপেনার কেভিন কাসুজাকে। এরপর স্বাগতিক বোলারদের নাস্তানুবাদ করে ছাড়েন দুই ব্যাটসম্যান প্রিন্স মাসভাউর এবং আরভিন। আগমনী চৈত্রের বার্তা দেওয়া তপ্ত রোদে টাইগার বোলারদের শাসন করে নিজের অর্ধশতক তুলে নেন মাসভাউর।

দ্বিতীয় উইকেটে দুজনের ১১১ রানের পার্টনারশিপের মাথায় বাংলাদেশ দলের ত্রাতা হয়ে আসেন স্পিনার নাঈম হাসান। নিজেই ক্যাচ নিয়ে ফেরান ৬৪ রানে ব্যাট করা মাসভাউরকে। খানিক বাদে নাঈমকে রিভার্স সুইপ করত গিয়ে নিজের উইকেট বিসর্জন দেন টেলর। সাজঘরের পথ ধরেন ১০ রান করে।

এরপর সিকান্দার রাজাকে নিয়ে লড়ে যান আরভিন। তবে রাজাকে বেশিক্ষণ স্থায়ী হতে দেননি নাঈম। নিজের তৃতীয় শিকারে পরিণত করেছেন ব্যক্তিগত ১৮ রানের মাথায়। নতুন ব্যাটসম্যান টিমিসেন মারুমাকে তুলে নেন রাহী। লেগ বিফোরের ফাদে ফেলেছেন ৭ রানের সময়।

অন্যপ্রান্তে দেখেশুনে খেলে টেস্টে নিজের তৃতীয় সেঞ্চুরি তুলে নেন আরভিন। তবে দিন শেষের এক ওভার আগে ১০৭ রান করে নাঈমের চতুর্থ শিকার হয়ে ফিরতে হয় বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যানকে। ফলে ৬ উইকেট হারিয়ে ২২৮ রান নিয়ে প্রথম দিনের খেলা শেষ করে জিম্বাবুয়ে। টিরিপানো ০ এবং চাকাভা ৭ রান নিয়ে আগামীকাল (রোববার) দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করবেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

জিম্বাবুয়ে ২২৮/৬ (৯০ ওভার)
আরভিন ১০৭, মাসভাউর ৬৪, রাজা ১৮; নাঈম ৪/৬৮, রাহী ২/৫১।