খুলশীর বাসায় মিলছে স্ত্রীর মরদেহ,রয়েছে আঘাতের চিহ্ন : স্বামীর খোঁজে পুলিশ

71
স্ত্রীর মরদেহ

২৪ ঘন্টা চট্টগ্রাম ডেস্ক : চট্টগ্রাম নগরীর খুলশী থানা ঝাউতলা এলাকার নিজ বাসা থেকে রোজী আক্তার (২০) নামে এক গৃহবধুর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

পুলিশ জানায়, সোমবার (২ ডিসেম্বর) সকাল ৭টার দিকে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে ঝাউতলায় ডিজেল কলোনির জনৈক আবুল কাশেমের ভাড়া বাসাটিতে গিয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে। মরদেহটির হাত বাঁধা, গলায় তার প্যাঁচানো এবং মাথায় আঘাতের চিহ্ন পাওয়ার কথাও জানিয়েছেন পুলিশ।

নিহত রোজী আক্তার (২০) খুলশী ঝাউতলা এলাকায় বেসরকারি পোর্ট সিটি ইউনিভার্সিটির প্রহরী হিসেবে কর্মরত ছিলেন। স্বামী রেজাউল করিম (২৮) সীতাকুণ্ড উপজেলার কুমিরা ইউনিয়নের মসজিদ্দ্যা গ্রামের বুদরুজ ড্রাইভার বাড়ির আবুল মনসুরের ছেলে।

এদিকে হত্যাকাণ্ডের পর থেকে নিখোঁজ রয়েছে নিহত রোজীর স্বামী রেজাউল করিম (২৮)। স্ত্রীকে হত্যা করে স্বামী পালিয়ে গেছে এমন ধারণা থেকে স্বামীর খোঁজে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে খুলশী থানা পুলিশের একটি টিম।

পুলিশ জানায়, গত ফেব্রুয়ারি মাসে রেজাউল ও রোজীর বিয়ে হয়। ঝাউতলার একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করার সুবাধে যাতায়াতের সুবিধার্থে গত মার্চ মাসে স্বামীকে নিয়ে ওই এলাকার রেলওয়ে ডিজেল কলোনির জনৈক আবুল কাশেমের ভাড়াঘরে উঠেন।

বাসার খুব কাছাকাছি ছিলো রোজীর বোনের বাসা। সেখানে স্বামী-স্ত্রী দুজনে দুপুরে ও রাতের খাবার খেতেন। হত্যাকা-ের আগের দিন রোববার (১ ডিসেম্বর) রাতেও তারা দুজনে সেখানে খাবার খেয়েছেন।

সোমবার সকালে রোজীর বোন এসে রোজীর মরদেহ দেখতে পেয়ে স্থানীয়দের জানান। পরে স্থানীয়রা থানায় খবর দিলে ঘটনাস্থল থেকে হাত বাঁধা অবস্থায় রোজীর মরদেহটি পুলিশ উদ্ধার করে।

লাশ উদ্ধারের পর সুরতহাল রিপোর্ট শেষে ময়নাতদন্তের জন্য রোজীর মরদেহ চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে বললেন খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রণব চৌধুরী।

তিনি বলেন, নিহতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন ও গলায় তার পেছানো দেখে ধারণা করছেন তাকে হত্যা করা হয়েছে। তাছাড়া ঘটনার পর থেকে স্বামী রেজাউল করিমকে পাওয়া যাচ্ছে না। এতে তিনি ধারণা করছেন স্ত্রীকে হত্যা করে স্বামী পালিয়ে গেছে।

ওসি বলেন, স্বামী রেজাউলকে গ্রেফাতারে থানা পুলিশের একটি টিম মাঠে নেমেছে। তাকে গ্রেফতার করা গেলে হত্যাকা-ের আসল রহস্য জানা যাবে।